Breaking News

সীমান্তে চরম উত্তেজনা, তিন বাহিনী প্রধানের সঙ্গে বৈঠক মোদির

করোনাভাইরাস নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে গোটা পৃথিবী। এর মধ্যে যুদ্ধের উত্তেজনা ছড়ালো ভারত ও চীন। দুই দেশের চির বৈরিতা মহামারিতেও কমেনি। সম্প্রতি ভারতের উত্তর সীমান্তের লাদাখে চীনের অগ্রযাত্রা ও বাড়তি সেনা মোতায়েনকে কেন্দ্র করে দু’দেশের মধ্যে তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে।

প্রতিবেশি দেশের সঙ্গে এমন উত্তেজনার ঘটনায় লাদাখ নিয়ে জরুরি বৈঠক ডেকেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মঙ্গলবার দুই দফায় বৈঠক করেছেন তিনি। লাদাখের নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিষয়গুলো খতিয়ে দেখতে এবং সেনাবাহিনীর কৌশল ঠিক করতে প্রথমে বৈঠক করেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল, চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ বিপিন রাওয়াত এবং তিন বাহিনীর প্রধানদের সঙ্গে। কূটনৈতিক অবস্থান ঠিক করতে আলাদা বৈঠক করেছেন পররাষ্ট্র সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলার সঙ্গেও।

এর আগে, প্রধানমন্ত্রী মোদির আগে লাদাখ নিয়ে একদফা বৈঠক করেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং।তিনবাহিনীর প্রধান এবং চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল বিপিন রাওয়াতের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। সীমান্ত সংলগ্ন এলাকার নিরাপত্তার বিষয়টি পর্যালোচনা করেন তারা। প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখার (এলএসি) বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে রাজনাথকে বিস্তারিত তথ্য দেন সেনাপ্রধান এমএম নারাভান।

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, দুই দেশের মাঝে যে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বা এলএসি রয়েছে, গত কয়েকদিনে সেই এলএসি বরাবর বিভিন্ন স্থানে দুই দেশের সেনারা সরাসরি সংঘর্ষে লিপ্ত হয়েছে। অন্যদিকে চীনা সৈন্যরা এবার ঘাঁটি তৈরি করেছে লাদাখের গালওয়ান ভ্যালির মতো সম্পূর্ণ নতুন জায়গাতেও, যেখানে আগে কোনও বিরোধের ইতিহাস ছিল না।

এ বিষয়ে ভারতের প্রতিরক্ষা বিশ্লেষক অজয় শুক্লা তার ব্লগে লিখেছেন, এই প্রথম সমগ্র গালওয়ান ভ্যালিকেই চীন নিজেদের বলে দাবি করছে। এই ইনট্রুশন-গুলো কিন্তু হয়েছে বিরাট একটা জায়গা জুড়ে। উত্তর লাদাখের গালওয়ান ভ্যালি থেকে কয়েকশো কিলোমিটার দূরে দক্ষিণ লাদাখের ডেমচক – আর সেখান থেকে কয়েক হাজার কিলোমিটার দূরে সিকিমের নাকু লা পাস পর্যন্ত। যা থেকে বোঝা যায় এই গোটা অভিযানটার পরিকল্পনা হয়েছে রাজনৈতিকভাবে খুবই উঁচু মহলে, এমন নয় যে স্থানীয় কমান্ডাররা তাদের ইচ্ছেমতো এগুলো করছেন।

সময়েরকন্ঠস্বর/

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *